বিজ্ঞপ্তি:
"কুমিল্লা টাইমস টিভিতে" আপনার প্রতিষ্ঠান অথবা নির্বাচনী প্রচারনার জন্য এখনি যোগাযোগ করুন : ০১৬২২৩৮৮৫৪০ এই নম্বরে
শিরোনাম:
মধ্যরাতে অগ্নিকান্ডে ভস্মীভূত ১৫ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মুরাদনগরে বিএনপির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মুরাদনগরে সড়কের সংস্কার কাজে অনিয়ম বিলুপ্তির পথে কুমিল্লার তাঁতে তৈরি আসল খাদি দেবীদ্বার ইফতার দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় সিগারেট বাকি না দেওয়ায় দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা ইউপি সদস্যের উপর হামলার জের, ব্যবসায়ীর বাড়ীতে ভাংচুর ও লুটপাট মুরাদনগরে বুধবার ও বৃহস্পতিবার বিদ্যুৎ থাকবেনা কনকর্ড অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কমিটি সভাপতি রেজাউল, সম্পাদক আলমগীর কুমিল্লায় রাতের আধারে অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে ইফিতার সামগ্রী বিতরন দক্ষিণ মুরাদনগর কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে বিনামূল্যে চক্ষু শিবির অনুষ্ঠিত মুরাদনগরে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার মুরাদনগর শিশু অপহরণ ও হত্যায় ৩জনের ফাঁসি ১জনের যাবজ্জীবন অগ্নিঝরা মার্চ মুরাদনগরে বসুন্ধরা শুভসংঘের উদ্যোগে সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্বোধন

মুরাদনগরে ভারত থেকে চোরাই পথে আসছে চিনি

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৪০১ বার পড়া হয়েছে
  • নিজিস্ব প্রতিবেদক:

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় অবৈধ পথে প্রতিদিন প্রায় ৫ কোটি টাকা মূল্যের চিনি আসছে ভারতীয় সিমান্তবর্তী এলাকা

ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার কসবা এবং কুমিল্লার ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার নয়নপুর এলাকা দিয়ে। সেসব চিনি মুরাদনগর উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ বাজার ও বাঙ্গরা বাজার এলাকা থেকে বিক্রি হচ্ছে পার্শবর্তী উপজেলার দেবিদ্বার, তিতাস, মেঘনা, হোমান, নবীনগর, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজারে। অবৈধভাবে এসব চিনি আসায় সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব, অন্যদিকে দেশের চিনি শিল্পে ঘটছে ব্যাপক ক্ষতি।

সরেজমিনে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানা সদরের প্রয়াত হাজী শুক্কুর আলীর ছোট ছেলে জামাল বাহিনীর ১৭ সদস্য বিশিষ্টি একটি চোরাকারবারি চক্র নিয়ন্ত্রণ করছে এসব চিনি ক্রয়-বিক্রয়।

চক্রটি প্রতিদিন কমপক্ষে শতাধিক পিকআপে করে অবৈধ পথে নিয়ে আসা এসব ভারতীয় চিনি বিক্রয় করছে প্রশাসনের নাকের ডগায়।

অন্যদিকে দেশের বাজারের তুলনায় দাম কমে পাওয়ায় এ চিনির কারবার বেড়েই চলেছে এবং স্থানীয় বাজারসহ জেলার অধিকাংশ বাজারে ওই চিনিতে সয়লাব হয়ে গেছে বলে দাবি স্থানীয় সচেতন মহলের।

স্থানীয় সচেতন নাগরিকেরা বলছে, এতে এক শ্রেণির মানুষ লাভবান হলেও দেশীয় চিনিশিল্প হুমকির মুখে পড়ছে। সেই সঙ্গে দ্রুত এই চোরাচালান বন্ধের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

নাম প্রকাশে অনিইচ্ছুক এক প্রাইকারি ব্যবসায়ী জানান, চোরাকারবারীর প্রধান জামাল উদ্দিন বিজিবির ভূয়া অকশেনের কাগজ তৈরী করে থানা এবং হাইওয়ে পুলিশসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরকে ধোঁকা দিয়ে মূলত এসব চিনির বস্তা পরির্বতন করে বাজারে বিক্রি করছে। বিভিন্ন সময় পুলিশ এসব চিনির পিকআপ আটক করলেও বিজিবির ভূয়া কাগজ দেখিয়ে পার পেয়ে যায় জামাল।

ব্যবসায়ী মানিক পোদ্দার বলেন, বাজারের চিনির তুলনায় ভারতীয় চিনির প্রতি বস্তায় ৭-৮শত টাকা ব্যবধান হওয়ায় দেশীয় চিনি কেউ এখন আর কিনতে চায় না। কেউ কেউ আবার ভারতীয় চিনির বস্তা পরিবর্তন করে দেশীয় চিনি বলে বেশি দামে বিক্রয় করছে। মূলত প্রশাসনের কোন ধরনের তৎপরতা না থাকায় বাজারে খোলামেলাই মিলছে এসব চিনি। বর্তমানে মুরাদনগর উপজেলার সকল বাজারের চিনি মানেই ভারতীয় চিনি, দেশীয় চিনির কোন অস্তিত্বিই নেই এখন বাজারে।

অভিযুক্ত চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের প্রধান জামাল উদ্দিন বলেন, ভারতীয় চিনি এসব কোম্পানীগঞ্জ বাজারে পাওয়া যায় আমি বিক্রি করি না। আগে অকশনে ভারতীয় কিছু চিনি পেতাম সেগুলো আমি বিক্রি করতাম এখন আর অকশনে পাই না তাই বিক্রিও করি না। আর আমার যে গোডাউন গুলো রয়েছে সেগুলোতে চাল রাখি, চিনি না।

মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুল বারী ইবনে জলিল ও বাঙ্গরা বাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী দুজনেই একসুরে গলা মিলিয়ে বলেন, ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে অবৈধ পথে আসা চিনির ব্যাপারে আমরা কিছুই জানি না।

এ বিষয়ে মুরাদনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলাউদ্দিন ভুইয়া জনী বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে বিষয়টি সত্যি হলে অচিরেই মোবাইল কোর্টের মাধ্যে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হবে।


কুমিল্লা টাইমস’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

বিজ্ঞাপন

সকল স্বত্বঃ কুমিল্লা টাইমস কতৃক সংরক্ষিত

Site Customized By NewsTech.Com