বিজ্ঞপ্তি:
"কুমিল্লা টাইমস টিভিতে" আপনার প্রতিষ্ঠান অথবা নির্বাচনী প্রচারনার জন্য এখনি যোগাযোগ করুন : ০১৬২২৩৮৮৫৪০ এই নম্বরে
শিরোনাম:
কুমিল্লায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তার ঘোষণা ১১ বছর পর ব্যবসায়ী ফারুক হত্যা মামলার রায় ডাকাতির ঘটনায় মোবাইল হারানোর জিডি নিলো পুলিশ কুমিল্লায় মায়ের কোপে মেয়ে খুন! মুরাদনগরে ভূমি সেবা সপ্তাহের সমাপনী; শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সম্মাননা প্রদান ঢাকাস্থ মুরাদনগর ছাত্রকল্যাণ পরিষদের সভাপতি আমিন ও সাধারণ সম্পাদক হাবিব শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় নার্গিস আফজালকে চিরো বিদায় ধর্ষণ মামলায় কুমিল্লা থেকে প্রিন্স মামুন গ্রেফতার ব্যবসায়ীকে তিন দিনের মধ্যে মেরে ফেলার হুমকি, নিরাপত্তা চেয়ে থানায় অভিযোগ অনিয়মের সংবাদ প্রকাশে সুফল পাচ্ছে এলাকাবাস কুমিল্লায় বিএনপির দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, গুলি-ককটেল বিস্ফোরণ বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে কুমিল্লায় সম্মাননা পেলেন ৭ সংবাদকর্মী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১৭জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল কুমিল্লায় তীব্র গরমে একই বিদ্যালয়ের ৭ শিক্ষার্থী অসুস্থ মুরাদনগরে নাগরিক ঐক্য পরিষদের প্রার্থী ঘোষনা

গাঁজা লুকানো বক্সখাটটি কুরিয়ার সার্ভিসে পৌঁছে দেয় কুসিক মেয়রের হোটেল কর্মচারী

  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৮৯ বার পড়া হয়েছে
গাঁজা লুকানো বক্সখাটটি কুরিয়ার সার্ভিসে পৌঁছে দেয় কুসিক মেয়রের হোটেল কর্মচারী
গাঁজা লুকানো বক্সখাটটি কুরিয়ার সার্ভিসে পৌঁছে দেয় কুসিক মেয়রের হোটেল কর্মচারী

কুমিল্লা প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) মেয়রের রেফারেন্সে বক্স খাটের ভেতর লুকিয়ে ৫১ কেজি ৯০০ গ্রাম গাঁজা রাজশাহীতে পাঠিয়েছে নিসা টাওয়ারের হোটেল রেড রুফ ইনের এক হোটেল বয়। এ ঘটনায় জড়িত রয়েছেন হোটেল রেড রুফ ইনের কর্মচারী এবং মেয়রের মামাতো শ্যালকসহ আরও দুইজন।

কুমিল্লার ধর্মপুর শাখার সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে বক্স খাটের ভেতরে মাদকের এই চালান পাঠানো হয়।
ধর্মপুর সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের এজিএম মো. শফিকুল ইসলাম অপু জানান, গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) রাত ৮টায় কিছু ফার্নিচার নিয়ে আসে হোটেল রেড রুফ ইনের হোটেল বয় মো. সোহেল। এগুলোর প্রেরকের ঘরে হুমায়ুন কবির এবং প্রাপক হিসেবে রাজশাহীর মুক্তার হোসেনের নাম দেয় সে। পাঠানো হয় রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানা মোড়ে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের শাখায়। তবে এসব আসবাবপত্র বুকিংয়ের সময় রেফারেন্স হিসেবে ‘মেয়র, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন’ লেখা হয়েছিল।

ফার্নিচারগুলো বুকিং দিয়েছিলেন সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের স্টাফ জসিম উদ্দিন। বুকিংয়ের ডেলিভারি চার্জ আসে ১২ হাজার ৬০০ টাকা। তখন হোটেল রেড রুফ ইনের কর্মচারী পরিচয়ে ফারুক নামে এক ব্যক্তি এবং হোটেলের জিএম আরিফ মেয়র মনিরুল হক সাক্কু সাহেবের শ্যালক পরিচয়ে মোবাইল ফোনে অনুরোধ করে ডেলিভারি চার্জ কমিয়ে নেওয়ার জন্য। এরপর রেফারেন্স হিসেবে ‘মেয়র, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন’ লেখা দেখে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ওই স্টাফ মেয়র সাহেবের সম্মানে বিল কমিয়ে ৮ হাজার টাকা ডেলিভারি চার্জ নির্ধারণ করে দেয়।

কুরয়ার সার্ভিসটির ধর্মপুর শাখার এজিএম মো. শফিকুল ইসলাম অপু আরও জানান, আসবাবপত্র নিয়ে আসা হোটেল রেড রুফ ইনের হোটেল বয় মো. সোহেল জানান, নগদে নয় বাকিতে মালপত্রগুলো পাঠানো হবে। রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানা মোড়ে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের শাখায় মুক্তার হোসেন নামে ওই ব্যক্তি চার্জ দিয়ে আসবাবপত্র গ্রহণ করবেন।

রবিবার আসবাবপত্র গুলো রাজশাহীতে পৌঁছলে সোমবার (৩১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর বোয়ালিয়া থানা মোড়ে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ডেলিভারি কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে বক্স খাটের ভেতর থেকে গাঁজার প্যাকেটগুলো উদ্ধার করে র‌্যাব। এঘটনায় গাঁজাসহ ৫ জনকে আটক করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীটি।  এ ঘটনায় পরে আরও একজনসহ মোট ছয়জনকে আটক করা হয়েছে।

এজিএম মো. শফিকুল ইসলাম অপু বলেন, কার্টন, ব্যাগসহ সবসময় বুকিংয়ের সময় অন্যান্য আসবাবপত্র খুলে পরীক্ষা করা হলেও ওইদিন ফার্নিচার হওয়ায় তা চেক করা সম্ভব হয়নি। কারণ বক্স খাটের মাথার পাশে বক্সটিতে পেরেক মারা ছিল। কিন্তু পরে জানতে পারি ওই ফার্নিচারের ওই বক্সের ভিতর ৫১ কেজি ৯০০ গ্রাম গাঁজা ছিল।

এই বিষয়ে অভিযুক্ত রেড রুফ ইন এর জি এম আরিফের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তিনি কল রিসিভ করেননি।

সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসে ফার্নিচারগুলো নিয়ে যাওয়া ব্যক্তি রেড রুফ ইনের হোটেল বয় সোহেল জানান, শুক্রবার রাতে হুমায়ুন কবির নামে তাদের এক কাস্টমার তাকে বলেছিল সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসে ফার্নিচারগুলো দিয়ে আসতে। তখন সে এইগুলো নিয়ে কুমিল্লার ধর্মপুর সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসে যায়। তবে তিনি জানতেন না ফার্নিচারের ভেতরে গাঁজা রয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু জানান, আমার পরিচয় ব্যবহার করে গাঁজা পাচারের বিষয়টি আমি শুনেছি। রেড রুফ ইন এর হোটেল বয়, কর্মচারী হোটেলে থাকলেও জিএম আরিফ ছুটিতে আছেন। তার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জে। তিনি বাড়িতে আছেন। তারপরও এই রকম অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে আমার রেফারেন্স যারা ব্যবহার করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
উল্লেখ্য, নগরীর রেসকোর্স নিসা টাওয়ার এবং হোটেল রেড রুফ ইন সিটি মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান।

গাঁজা পাচারের ঘটনায় রাজশাহীতে র‌্যাবের হাতে আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন রাজশাহীর পবা উপজেলার দুয়ারী গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে দুলাল (৩০), তানোরের দেউরাতলা গ্রামের ফজর আলীর ছেলে তোফাজ্জল হোসেন (২৪), একই উপজেলার সেদায়ের এলাকার মৃত আফসার আলীর ছেলে বাদশা (৩২), সিধাইড় গ্রামের মেরাজ উদ্দিনের ছেলে সোহান আলী (২১), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা থানার বেলতলি এলাকার সুলতান আহমেদের ছেলে মুকতুল হোসেন (৩২) এবং একই থানার মাদলা এলাকার আবদুর রহিমের ছেলে বাপ্পি (৩০)।

কুমিল্লা র‌্যাব-১১-সিপিসি-২ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব জানান, ফার্নিচারের ভিতরে লুকিয়ে কুমিল্লা থেকে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে গাঁজা পাচার করা হয়েছে। পরে রাজশাহী র‌্যাব-৫ মাদকগুলো উদ্ধার করেছে বলে জেনেছি। তবে এর বেশি কিছু আমাদের জানা নেই


কুমিল্লা টাইমস’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

বিজ্ঞাপন

সকল স্বত্বঃ কুমিল্লা টাইমস কতৃক সংরক্ষিত

Site Customized By NewsTech.Com